পর্যটন বাংলাদেশ - বাংলাদেশ ভ্রমণ - বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান


জেলাঃ ময়মনসিংহ

জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা
ময়মনসিংহ >>  ময়মনসিংহ সদর

ময়মনসিংহ জেলা শহরের কাচিঝুলি সংলগ্ন এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদীর তীরে গড়ে তোলা হয়েছে এই জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা। ১৯৭৫ সালের ১৫ এপ্রিল তৎকালীন উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এই সংগ্রহশালাটির উদ্বোধন করেন। ১৯৯৯ সালের ৩১ আগস্ট হতে এটি জাতীয় জাদুঘরের একটি শাখা জাদুঘর হিসেবে পরিচালিত হয়ে আসছে। তবে ২০০৪ সালের জুলাই মাসে সংগ্রহশালাটি নতুন রূপে সাজিয়ে দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। শিল্পাচার্যের আঁকা ৭০টি শিল্পকর্ম দিয়ে এই সংগ্রহশালাটির যাত্রা শুরু হলেও বর্তমানে শিল্পীর আঁকা ৬১টি মৌলিক শিল্পকর্ম, ১টি শিল্পকর্মের ডিজিটাল অনুকৃতি, শিল্পাচার্যের ব্যবহৃত ৮০টি নিদর্শন, ৫৩টি আলোকচিত্র সংরক্ষিত আছে। শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন ১৯১৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার অন্তর্গত বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলার জন্মগ্রহন করেন। ১৯৪৩ সালে বাংলার দুর্ভিক্ষ (পঞ্চাশের মন্বন্তর) এর উপর বিখ্যাত দুর্ভিক্ষ চিত্রমালা ১৯৪৩ আঁকেন। ১৯৫৯ সালে পাকিস্তান প্রেসিডেন্ট কর্তৃক সৃজনশীল কাজের জন্য ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

বিজয়গাঁথা জাদুঘর
ময়মনসিংহ >>  ময়মনসিংহ সদর

ময়মনসিংহস্থ সেনানিবাসের গেট সংলগ্ন স্থানে এই জাদুঘরটি রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে এই জাদুঘরটিতে। একটি মাত্র গ্যালারীতে সাজিয়ে রাখা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধে ব্যবহৃত অস্ত্র, গোলাবারুদ। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের কপিও আছে এ যাদুঘরটিতে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

গারো পাহাড়
ময়মনসিংহ >>  হালুয়াঘাট

পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ হালুয়াঘাটেও গারো অধ্যুষিত পাহাড় অঞ্চল। পিকনিক, অ্যাডভ্যাঞ্চার এর অন্যতম স্থান এই পাহাড়গুলো। গারো পাহাড়ের এই অঞ্চলের মধ্যে মিতালী টিলা, গাবড়াখালি পাহাড় অধিক জনপ্রিয় দুটি পাহাড়। সমতল অঞ্চলে সবুজের বেষ্টনীতে পাহাড়গুলোর অপরূপ দৃশ্য পর্যটকদের মুগ্ধ করে। পাহাড়ি বনের মধ্য দিয়ে ট্র্যাকিং এর সময় বনের পাখিদের কলকাকলী আপনার ভ্রমণকে আরও প্রাণবন্তর করে তুলবে। মিতালী পাহাড়টি পিকনিক করার জন্য অন্যতম আকর্ষণীয় একটি স্পট। গাবড়াখালি পাহাড়ও অন্যতম একটি আকর্ষণীয় স্পট। ছোট-বড় অনেক পাহাড় দেখতে পাবেন এই গাবড়াখালিতে। এখানে আদিবাসী হাজং এর বসবাস। পাহাড় আর আদিবাসীদের জীবন বৈচিত্র্য আপনাকে মুগ্ধ করবে। হালুয়াঘাট উপজেলা থেকে মোটরসাইকেল যোগে আসতে পারবেন এখানে। উপজেলা সদর থেকে স্থানটির দুরত্ব প্রায় ১৪ থেকে ১৫ কিলোমিটার। ময়মনসিংহ জেলা থেকেও মাইক্রবাস বা গাড়ী ভাড়া করেও এখানে আসতে পারবেন। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

তেলোয়ারী জামে মসজিদ
ময়মনসিংহ >>  ঈশ্বরগঞ্জ

ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার একটি প্রাচীন দৃষ্টিনন্দন মসজিদ হলো এই তেলোয়ারী জামে মসজিদ। তিন গম্বুজ বিশিষ্ট এই মসজিদটির মধ্য গম্বুজ টি আকারে অন্য দুটির চেয়ে বড়। মসজিদের ৪ দেয়ালের ৪ কোনে দেখতে পাবেন অষ্টকোনাকৃতির বুরুজ। এছাড়াও মসজিদের প্রবেশ দরজার দুপাশে দুটি অপেক্ষাকৃত সরু বুরুজাকৃতির নির্মাণ কৌশল দেখা যাবে। মসজিদের প্রতিটি বুরুজের উপর মসজিদের ছাদের উপর নির্মিত গম্বুজ ের ন্যায় ছোট ছোট গম্বুজ রয়েছে। যা মসজিদের দৃষ্টিনন্দনতা অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। মসজিদটিতে প্রবেশের জন্য এর পূর্ব দেয়ালে ৩টি প্রবেশ দ্বার রয়েছে। মসজিদটির নির্মাণ কৌশল মুঘল আমলে নির্মিত মসজিদের নির্মাণ কৌশলের সাদৃশ্য রয়েছে। ঐতিহ্যবাহী দৃষ্টিনন্দন এই মসজিদটি দেখতে হলে আপনাকে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সদর হতে আরও প্রায় ১৪-১৫ কিলোমিটার দূরে আঠারবাড়ী নামক স্থানে যেতে হবে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

আঠারবাড়ী জমিদার বাড়ী
ময়মনসিংহ >>  ঈশ্বরগঞ্জ

ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার আঠারবাড়ী নামক স্থানে অবস্থিত আঠারবাড়ী জমিদার বাড়ী ময়মনসিংহের অন্যতম একটি ঐতিহাসিক নিদর্শন। ধারনা করা হয়, সতের শতকের শেষ দিকে এই জমিদার বাড়িটি নির্মিত হয়ে থাকতে পারে। এই জমিদার বাড়িটির সর্বশেষ জমিদার প্রমোদ রায় এই বাড়িটি সর্বশেষ ব্যবহার করেন বলে জানা যায়। ১৯২৬ সালে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জমিদার প্রমোদ রায়ের আমন্ত্রনে এই জমিদার বাড়িতে আসেন। উল্লেখ্য যে, প্রমোদ রায় কলকাতায় শান্তি নিকেতনের ছাত্রাবস্থায় সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথকে শিক্ষক হিসেবে পেয়েছিলেন।
ঐতিহাসিক দিক থেকেও এই আঠারবাড়ী এলাকাটি ছিল অতি সমৃদ্ধশালী এক নগরী ছিল। ব্যবসা-বানিজ্যের দিক থেকেও এই নগরী ছিল অতি গুরুত্বপূর্ণ। জমিদারের এই নিদর্শনটি দেখতে হলে আপনাকে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সদর হতে আরও প্রায় ১৪-১৫ কিলোমিটার দূরে আঠারবাড়ী নামক স্থানে যেতে হবে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

শহীদ আব্দুল জব্বার স্মৃতি জাদুঘর
ময়মনসিংহ >>  গফরগাঁও

মহান ভাষা আন্দোলনের শহীদ আব্দুল জব্বারের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার জব্বার নগর (পাঁচুয়া) গ্রামে ২০০৭ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ভাষা শহীদ আব্দুল জব্বার স্মৃতি জাদুঘর। এখানে তার নামে একটি পাঠাগারও নির্মাণ করা হয়েছে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

গৌরীপুর জমিদার বাড়ী ও মন্দির
ময়মনসিংহ >>  গৌরীপুর

ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর উপজেলার এক সময়ের দুই প্রতাপশালী জমিদার আনন্দ কিশোর ও জমিদার সুরেন্দ্র প্রসাদ লাহিড়ীর জমিদার বাড়িটি এখনও জমিদারদের অতীত ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। জমিদার আনন্দ কিশোরের মূল বাড়িটি বর্তমানে গৌরীপুর মহিলা কলেজ হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। অন্যদিকে জমিদার সুরেন্দ্র প্রসাদ লাহিড়ীর বাড়িটি গৌরীপুর সরকারী কলেজ হিসেবে বুবহৃত হচ্ছে। এই ভবনের মাঝামাঝি স্থানে রয়েছে জমিদারদের দ্বারা নির্মিত রাঁধাকৃষ্ণের বিগ্রহ মন্দির। মন্দিরটি খুবই দৃষ্টিনন্দন একটি স্থাপনা। মন্দিরটি নির্মাণে চীনা টাইলস ব্যবহার করা হয়েছে।
এছাড়াও দেখতে পাবেন ফরাসী স্থাপত্য শিল্পী দ্বারা নির্মিত নজরকাড়ার মত স্থাপত্য-নিদর্শন জমিদার ধরণীকান্ত লাহিড়ীর বাসভবন। বর্তমানে এটি একটি সরকারী বাসভবন। ভৈরবচন্দ্রের ভবানীপুর জমিদার বাড়ি এবং ডৌহাখলার জমিদার গুরুচরন সন্ন্যালের বাড়ি আজ বিপন্ন প্রায় হলেও জমিদারদের ঐতিহ্য, প্রতাব এর সাক্ষী আজও বহন করছে। সপ্তদশ শতাব্দীতে এসকল স্থাপনা নির্মিত হয় বলে মনে করা হয়। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

First  Previous  1  2  



পর্যটন বাংলাদেশ - বাংলাদেশ ভ্রমণ - বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান