পর্যটন বাংলাদেশ - বাংলাদেশ ভ্রমণ - বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান


কশাইটুলি মসজিদ
ঢাকা >>  আর্মানিটোলা

বাংলাদেশের সর্বোচ্চ এবং সর্বাপেক্ষা শ্রেষ্ঠ অলংকৃত মসজিদ এটি। চোখ ধাঁধানো নকশায় অলংকৃত এই কশাইটুলি মসজিদটি ঢাকার আর্মানিটোলার নিকট কশাইটুলিতে অবস্থিত। আব্দুল বারী বেপারী নামের এক ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ১৯১৯ খ্রিষ্টাব্দে এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। এটি একটি আয়াতাকার ইমারত। পরবর্তীতে এটি সংস্কার করা হয় এবং প্রচুর কারুকার্য করা হয়। মসজিদটি ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট। মসজিদের অভ্যন্তরের পশ্চিম দেয়ালে ৩ টি সুদৃশ্য অলংকৃত মিহরাব রয়েছে। পূর্ব দেয়ালে ৩ টি প্রবেশদ্বার রয়েছে। মসজিদের অলংকরণ ক্রা হয়েছে চিনি টিকরি পদ্ধতিতে। চিনি টিকরি পদ্ধতি হলো রঞ্জিত মৃৎপাত্রের টুকরো দিয়ে নকশা তৈরি করে অলংকার করা। খাঁজ কাটা গম্বুজ, ফুল, লতাপাতা, জ্যামিতিক নকশা, আরবি লিপির অলংকরণ, ছোট গোলাপের নকশা, আঙ্গুরের থোকা, টবের ফুল ইত্যাদি নকশা দেখা যাবে মসজিদের ভেতর ও বাহিরের দেয়ালে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

আর্মানিটোলা মসজিদ
ঢাকা >>  আর্মানিটোলা

পুরাতন ঢাকার আর্মানিটোলার তারা মসজিদের নিকটে শরৎচন্দ্র চক্রবর্তী রোডে রয়েছে এই আর্মানিটোলা মসজিদটি। আনুমানিক ১৭১৬ (মতান্তরে ১৭৩৫) খ্রিষ্টাব্দে খানজানী নামক এক ব্যক্তির স্ত্রী এই মসজিদটি নির্মাণ করেন বলে জানা যায়। এটি মোঘল আমলের একটি মসজিদ। আদিতে মসজিদটির ছাদ চৌচালা ঘরের চালের মত ছাদ ছিল। সংস্কারের ফলে চৌচালা চালের পরিবর্তে ছাদটিতে এখন গম্বুজ দেখতে পাওয়া যাবে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

দারোগা আমির উদদীনের মসজিদ ও মাজার
ঢাকা >>  ইসলামপুর

বাদামতলী ঘাটের কাছেই একটি প্রাচীর দিয়ে ঘেরা এই মসজিদটি দেখতে পাবেন। এটি দারোগা আমির উদদীনের মসজিদ নামে পরিচিত। ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট এই মসজিদটির ৪ কোনে ৪ টি মিনার রয়েছে। ব্রিটিশ আমলে নির্মিত এই মসজিদটির নির্মাতা ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী আমলের দারোগা আমির উদদীন। তার নামানুসারেই এই মসজিদটির নামকরণ করা হয়েছে। মসজিদটির পাশেই রয়েছে দারোগা আমির উদদীনের মাজার। মাজারটি এক গম্বুজ বিশিষ্ট। উনিশ শতকের প্রথম দিকে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। আহসান মঞ্জিল জাদুঘর এঁর নিকটে দেখতে পাবেন এই মসজিদটি। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

ইসলাম খানের মসজিদ
ঢাকা >>  ইসলামপুর

ইসলামপুর রোডের নিকট বর্তমান সৈয়দ আওয়াল হোসেন লেনে অবস্থিত। এটি ১৬৩৫ - ১৬৩৯ খ্রিষ্টাব্দ সময়ের মধ্যে নির্মিত বলে অনুমান করা হয়। মসজিদটির আমূল সংস্কার করা হয়েছে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

নভরায় লেনের মসজিদ
ঢাকা >>  ইসলামপুর

পুরাতন ঢাকার ইসলামপুরের নভরায় লেনে একটি প্রাচীন ছোট মসজিদ রয়েছে। মসজিদটি এক গম্বুজ বিশিষ্ট। পশ্চিম দেয়ালে ৩ টি মিহরাব আছে। প্রবেশের জন্য পূর্ব দেয়ালে আছে ৩ টি প্রবেশদ্বার। নির্মাণ কৌশল অনুযায়ী, মসজিদটি মোঘল আমলে নির্মিত। এটি সংস্কার করা হয়েছে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

খাজা আম্বার মসজিদ
ঢাকা >>  কারওয়ান বাজার

শায়েস্তা খাঁর স্থাপত্য রীতিতে নির্মিত এই মসজিদটি ঢাকার কারওয়ান বাজার এলাকায় অবস্থিত। এটি ঢাকার মসজিদগুলোর মধ্যে অন্যতম পুরাতন মসজিদ। মসজিদটির নির্মাণ কৌশল ও অভ্যন্তরীণ সাজসজ্জা সকলকেই মুগ্ধ করে। খাজা আম্বার ১৬৬৭ - ১৬৭৮ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে এই মসজিদটি নির্মাণ করেন বলে জানা যায়। মসজিদের পাশেই রয়েছে খাজা আম্বারের সমাধি। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

মালিক আম্বরের মসজিদ, সমাধি ও সেতু
ঢাকা >>  কারওয়ান বাজার

রাজধানী ঢাকার কারওয়ান বাজারের নিকট সোনারগাঁও হোটেলের সামনে এই মালিক আম্বরের মসজিদটি রয়েছে। এটি একটি ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। ধারনা করা হয়, মোঘল আমলের ১৬৭৯ - ১৬৮০ খ্রিষ্টাব্দ সময়ে এটি নির্মিত হয়। মসজিদটি ভূমি পরিকল্পনায় আয়তাকার। একটি উঁচু প্লাটফর্মের উপর এই মসজিদটি নির্মিত। মসজিদের প্রাঙ্গনেই আছে মসজিদটির নির্মাতা মালিক আম্বারের সমাধি। মালিক আম্বার শায়েস্তা খানের একজন কর্মচারী ছিলেন। মালিক আম্বার এখানে একটি সেতুও নির্মাণ করছিলেন। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

চেহেলগাজীর মাজার ও মসজিদ
দিনাজপুর >>  দিনাজপুর সদর

দিনাজপুর জেলা শহরের দিনাজপুর সরকারী কলেজের উত্তর দিকে চেহেলগাজীর মসজিদ ও মাজারটি দেখতে পাবেন। এটি খুবই পুরাতন একটি মসজিদ ও মাজার। মসজিদের এক শিলালিপি অনুযায়ী ১৪৬০ সালে সুলতান রুকন-উদ্‌-দীন বারবক শাহের রাজত্বকালে এই মসজিদটি নির্মিত হয়েছিল। চেহেল শব্দের অর্থ ৪০ এবং গাজী অর্থ বীর মুসলিম যোদ্ধা। এই চেহেলগাজীর মাজারটি প্রায় ৫৬ ফুট লম্বা একটি মাত্র কবর। ৪০ জন বীর মুসলিম যোদ্ধাকে এখানে একসাথে কবর দেয়া হয়েছে বলে এই মাজারটির নাম চেহেল গাজীর মাজার নামে পরিচিতি পায়। এটিকে আবার ৪০ জন বীর মুসলিম যোদ্ধার কবরও বলা হয়। ধারনা করা হয়, মুসলিম আমলের প্রথম দিকে কোন এক ধর্মীয় যুদ্ধে নিহত দরবেশ-সৈন্যদের লাশ এখানে একসঙ্গে সমাহিত করা হয়।
মাজারটির পশ্চিম পাশেই রয়েছে একটি মসজিদ। এটি ১ গম্বুজ বিশিষ্ট একটি মসজিদ ছিল। ধর্মীয় এই ইমারতটি বর্গাকারে নির্মিত ছিল। মসজিদে প্রবেশের জন্য পূর্ব দিকে ৩ টি এবং উত্তর-দক্ষিণ দিকে ১টি করে প্রবেশদ্বার ছিল। পশ্চিম দেয়ালে ১টি মিহরাব নির্মাণ করা হয়েছিল। মসজিদটি এখন আর আগের অবস্থায় নেই। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

গোপালগঞ্জ মসজিদ
দিনাজপুর >>  দিনাজপুর সদর

দিনাজপুর শহর থেকে প্রায় ৪ মাইল দূরে গোপালগঞ্জে এই প্রাচীন মসজিদটি রয়েছে। এটি বর্গাকারে নির্মিত ১ গম্বুজ বিশিষ্ট একটি মসজিদ। মসজিদটির পশ্চিম দেয়ালে নকশাযুক্ত ৩টি মিহরাব রয়েছে। প্রবেশের জন্য পূর্ব দেয়ালে ৩টি এবং উত্তর-দক্ষিণে ১টি করে প্রবেশদ্বার রয়েছে। সুলতান বরবক শাহের রাজত্বকালে ১৪৬০ সালে এই মসজিদটি নির্মিত হয়। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

দরিয়া মসজিদ
দিনাজপুর >>  নবাবগঞ্জ

দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ থানার দরিয়া গ্রামে একটি প্রাচীন মসজিদ রয়েছে। মসজিদটি দরিয়া মসজিদ নামে পরিচিত। এটি একটি ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। পশ্চিম দেয়ালে ৩টি মিহরাব আছে। মসজিদটিকে পরবর্তীতে সংস্কার করা হয়েছে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

First  Previous  1  2  3  4  5  6  7  8  9  10  11  12  13  14  15  16  17  18  19  20  Next  Last  



পর্যটন বাংলাদেশ - বাংলাদেশ ভ্রমণ - বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান