পর্যটন বাংলাদেশ - বাংলাদেশ ভ্রমণ - বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান


শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ
কিশোরগঞ্জ >>  কিশোরগঞ্জ সদর

বাংলাদেশের অন্যতম সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় এই ময়দানটিতে। ১৭৫০ সালে এখানে সর্ব প্রথম ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় বলে প্রচলিত আছে। প্রায় ৩ লক্ষাধিক লোকের জমায়েত হয় প্রতি ঈদের জামাতে। বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লীরা এখানে ঈদের জামাতে অংশগ্রহন করার জন্য ছুটে আসে। এশিয়া মহাদেশের মধ্যে সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত এখানে অনুষ্ঠিত হয়। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

গোরাই মসজিদ
কিশোরগঞ্জ >>  কটিয়াদী

কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদি উপজেলার গোরাই নামের একটি গ্রামে এই গোরাই মসজিদটি রয়েছে। এটি বর্গাকারে নির্মিত এক গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। মসজিদের অভ্যন্তরে ৩ টি মিহরাব আছে, যেগুলো অত্যন্ত কারুকার্যময়। পূর্ব দেয়ালে ৩টি প্রবেশ পথ আছে। উত্তর ও দক্ষিন দিক দিয়ে প্রবেশের জন্য ১টি করে প্রবেশ পথ আছে। ১৬৮০ সালে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয় বলে অনুমান করা হয়। মসজিদটিকে সংস্কার করা হয়েছে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

কুতুবশাহ মসজিদ / অষ্টগ্রাম মসজিদ
কিশোরগঞ্জ >>  অষ্টগ্রাম

কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলা সদরে এই কুতুবশাহ মসজিদটি অবস্থিত। অষ্টগ্রাম মসজিদ নামেও এটি পরিচিত। মসজিদটি সুলতানি আমলের স্থাপত্য শৈলীর এক চমৎকার নিদরশন। এটি একটি ৫ গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। মসজিদের পূর্ব দেয়ালে ৩ টি এবং উত্তর ও দক্ষিন দিকে ১ টি করে প্রবেশ পথ আছে। পশ্চিম দেয়ালে দেখতে পাবেন ৩টি মিহরাব। মসজিদটির কার্নিশ গুলো বাঁকানো। মসজিদের ৪ কোণে ৪ টি অষ্টকোণাকৃতির মিনার রয়েছে। যা মসজিদটির সৌন্দর্য অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। দেয়ালে পোড়ামাটির অলঙ্করণ মসজিদটিকে দৃষ্টিনন্দন করে তুলেছে। ১৫৩৮ সালে এই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়। মসজিদটির নিকট একটি সমাধি রয়েছে। এটি কুতুবশাহ নামক একজন দরবেশের মাজার। তিনিই এই মসজিদটি নির্মাণ করেন বলে জনশ্রুতি আছে। এছাড়াও পাঁচ পীরের মাজার বলে পরিচিত আরও ৫টি কবর এখানে আছে। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

নূর মানিকচর জামে মসজিদ
কুমিল্লা >>  দেবিদ্বার

কুমিল্লা জেলার দেবীদ্বার উপজেলার নূর মানিকচর নামক একটি গ্রামে ঐতিহাসিক একটি মসজিদ নূর মানিকচর জামে মসজিদ। এটি আয়তাকারে নির্মিত একটি ছোট ধর্মীয় ইমারত। এবং ৭ গম্বুজ বিশিষ্ট। জানা যায়, নূর আহমেদ কাদেরী নামের এক পীর পঞ্চদশ শতাব্দীর কাছাকাছি সময়ে এটি নির্মাণ করেছিলেন। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

বায়তুল আজগর জামে মসজিদ
কুমিল্লা >>  দেবিদ্বার

কুমিল্লা জেলার দেবীদ্বার উপজেলার গুনাইঘর বায়তুল আজগর জামে মসজিদ অন্যতম একটি দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্য। একটি একটি ৭ গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদ। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

চিতোড্ডা মসজিদ
কুমিল্লা >>  বরুড়া

কুমিল্লা জেলার বড়ুয়া উপজেলার চিতোড্ডা নামের একটি গ্রামে একটি প্রাচীন মসজিদ দেখতে পাবেন। মসজিদটি চিতোড্ডা মসজিদ নামে পরিচিত। মসজিদটি আয়তাকারে নির্মিত এবং ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট। একটি উঁচু প্লাটফর্মের উপর মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে। মসজিদের এক শিলালিপি অনুযায়ী, মোহাম্মদ জামাল নামক এক ব্যক্তি ১৭৭৪ সালে এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

অর্জুনতলা মসজিদ
কুমিল্লা >>  বরুড়া

কুমিল্লা জেলার বড়ুয়া উপজেলার অর্জুনতলা নামের একটি গ্রামে একটি প্রাচীন মসজিদ দেখতে পাবেন। মসজিদটি অর্জুনতলা মসজিদ নামে পরিচিত। মসজিদটি আয়তাকারে নির্মিত এবং ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট। এটি দৈর্ঘ্যে ১১.৬ মিটার এবং প্রস্থে প্রায় ৬ মিটার লম্বা। মসজিদটির অভ্যন্তরে পশ্চিম দেয়ালে ৩টি মিহরাব দেখতে পাবেন। মসজিদের এক শিলালিপি অনুযায়ী, ১৭৮৮ সালে এটি নির্মাণ করা হয়। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

বড় শরীফপুর মসজিদ/ কোতোয়ালী মসজিদ
কুমিল্লা >>  লাকসাম

কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলার শরীফপুর গ্রামে এই বড় শরীফপুর মসজিদটি রয়েছে। মসজিদটির পাশেই নাটেশ্বর নামক একটি প্রাচীন বড় দিঘি রয়েছে। মসজিদটি ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট। মসজিদের পূর্ব দেয়ালে ৩টি প্রবেশপথ রয়েছে এবং উত্তর ও দক্ষিন দিকে ১টি করে প্রবেশ পথ রয়েছে। অভ্যন্তরে পশ্চিম দেয়ালে ৩ টি মিহরাব রয়েছে। আরতাকারে নির্মিত এই ধর্মীয় ইমারতের ৪ কোণে টি আটকোনাকারে নির্মিত বুরুজ দেখতে পাওয়া যায়। মসজিদের এক শিলালিপি অনুযায়ী, সম্রাট আওরঙ্গজেবের আমলে মোহাম্মদ হায়াত নামক এক কোতোয়াল ১৭০৬ সালে এটি নির্মাণ করেছিলেন। একারনে মসজিদটি কোতোয়ালী মসজিদ নামেও পরিচিত। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

শাহ সুজা মসজিদ
কুমিল্লা >>  কুমিল্লা সদর

কুমিল্লা শহরের সুজাগঞ্জের এলাকায় এই শাহ সুজা মসজিদটি দেখতে পাবেন। মসজিদটি মোঘল সম্রাট শাহজাহানের দ্বিতীয় পুত্র সুবাহদার শাহ সুজা নির্মাণ করেন বলে জনশ্রুতি আছে। একারনে এই মসজিদটির নামকরন করা হয়েছে শাহ সুজা মসজিদ। শাহ সুজা সুবাহদার এর সময়কাল অনুযায়ী, মসজিদটি সতের শতাব্দীতে নির্মিত বলে অনুমান করা হয়। এটি আয়তাকারে নির্মিত ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট ধর্মীয় ইমারত। মসজিদের পূর্বদিকে ৩টি এবং উত্তর ও দক্ষিণ দিকে ২টি করে প্রবেশপথ রয়েছে। পশ্চিম দেয়ালে অলংকৃত ৩টি মিহরাব রয়েছে। মিহরাব ৩টির মধ্যে মধ্য মিহরাবটি অপেক্ষাকৃত বড়। মসজিদের বাহিরের দেয়ালে খোঁপ নকশা আছে। মসজিদটি বেশ কয়েকবার সংস্কার করা হয়েছে। একারনে এর আদি রূপটি এখন পূর্বের ন্যায় নেই। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

সাত বাড়িয়া মসজিদ
কুষ্টিয়া >>  ভেড়ামারা

কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা উপজেলার সাতবাড়িয়া গ্রামে প্রাচীন এই মসজিদটি দেখতে পাবেন। মসজিদটি মোঘল আমলের শেষের দিকেসুবাদার নবাব মুর্শিদ কুলী খানের আমলে নির্মিত বলে অনুমান করা হয়। এটি ৩ গম্বুজ বিশিষ্ট একটি ইমারত। মসজিদের পূর্ব দেয়ালে ৩টি এবং উত্তর ও দক্ষিন দিকে ১টি করে প্রবেশ পথ আছে। মসজিদের ৪ কোণে ৪ টি মিনার দেখতে পাবেন। ...... সম্পূর্ণ অংশ পড়ুন

First  Previous  1  2  3  4  5  6  7  8  9  10  11  12  13  14  15  16  17  18  19  20  Next  Last  



পর্যটন বাংলাদেশ - বাংলাদেশ ভ্রমণ - বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান